ঢাকা, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪
Sharenews24

জন্মহার বাড়াতে যেখানে চালু হচ্ছে ডেটিং অ্যাপ

২০২৪ জুন ০৭ ১৯:৫৮:১০
জন্মহার বাড়াতে যেখানে চালু হচ্ছে ডেটিং অ্যাপ

ডেস্ক রিপোর্ট : চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে জাপান সরকার বলেছিল, তারা দেশের রেকর্ড কম জন্মহার মোকাবেলায় ‘অভূতপূর্ব ব্যবস্থা’ নেবে। এই বার্তাটি সম্ভবত দেশটির রাজধানী টোকিওর সরকার খুব গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে।

টোকিও মেট্রোপলিটন সরকার রাজধানীর বাসিন্দাদের জন্য একটি ডেটিং অ্যাপ এবং বিবাহ প্রচার প্রকল্পে ১.২৮ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। অ্যাপটি এই গ্রীষ্মে চালু হতে চলেছে।

এই অ্যাপের রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়াটি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে ব্যবহারকারীরা বিয়েকে চূড়ান্ত লক্ষ্য হিসাবে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করে।

জাপানের জাতীয় দৈনিক দ্য আসাহি শিম্বুনের মতে, অন্যান্য ডেটিং অ্যাপে যেসব সমস্যায় পড়তে হয়, সেগুলো যেন না থাকে সেজন্যই এই অ্যাপ আনছে টোকিও।

অ্যাপটির ব্যবহারকারীদের শুধুমাত্র একটি ফটো আইডি নয়, তাদের আয় এবং সম্পর্কের স্থিতি নিশ্চিত করার জন্য একটি অফিসিয়াল নথিও প্রদান করতে হবে।

আশাহি শিম্বুনের খবরে বলা হয়েছে, অ্যাপটিতে ব্যবহারকারীর উচ্চতা, শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশাসহ ১৫টি ক্যাটাগরির ব্যক্তিগত তথ্য দিতে হবে। এই সব তথ্যই যোগ্য পাত্র/পাত্রী দেখতে পাবেন।

টোকিওর একজন কর্মকর্তা দ্য আসাহি শিম্বুনকে বলেন, ‘যদি এমন কিছু মানুষ থাকে যারা বিয়ে করতে আগ্রহী কিন্তু সঙ্গী খুঁজে না পান, আমরা তাদের সাহায্য করতে চাই।’

স্থানীয় সরকারের পক্ষে ম্যাচমেকার খুঁজে পেতে এই জাতীয় অ্যাপ তৈরি করা বিরল। কিন্তু কর্মকর্তারা বলছেন, সরকারিভাবে তৈরি এই ধরনের অ্যাপগুলো মানুষকে মূলধারার অ্যাপের অপব্যবহার বন্ধ করতে উৎসাহিত করবে।

৩০৩২ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে জাপানে ব্যবহৃত ৬০ শতাংশ ডেটিং অ্যাপ বৈবাহিক অবস্থা সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়েছে। এছাড়াও জাল প্রোফাইল মত অন্যান্য সমস্যা আছে.

এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, দেশটিতে ডেটিং অ্যাপটির জনপ্রিয়তা বাড়ছে। প্রেমিক-প্রেমিকা দম্পতিদের পরিচয় বেশিরভাগ ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে। এর মধ্যে অ্যাপের মাধ্যমে দেখা হওয়া দম্পতির ২৫ শতাংশ এক বছরের মধ্যে বিয়ে করেছেন।

এসব বিষয় বিবেচনা করে এই সরকারি অ্যাপটি এমন এক সময়ে চালু করা হচ্ছে যখন জাপান অত্যন্ত কম জন্ম ও বিবাহের হারে ভুগছে।

জাপানে টোকিওর ৫০ বছর বয়সী জনসংখ্যার একক হার সবচেয়ে বেশি। রাজধানীতে এই বয়সী নারীদের মধ্যে ৩২ শতাংশ পুরুষ এবং ২৪ শতাংশ নারী অবিবাহিত।

তবে ২০২১ সালের স্থানীয় সরকার সমীক্ষা অনুসারে, টোকিওর বাসিন্দাদের ৬৭.৪০ শতাংশ যারা বিয়ে করতে চান সক্রিয়ভাবে একজন সঙ্গী খুঁজছেন না।

এদিকে, বুধবার জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সালে দেশটির জন্মহার ৫.৩০ শতাংশ কমে যাবে। ১৮৯৯ সালে পরিসংখ্যান রাখা শুরু হওয়ার পর থেকে জাপানের জন্মহার এতটা কমেনি। উপরন্তু, বিবাহের হার এছাড়াও ২০২৩ সালের তুলনায় ৬ শতাংশ কমেছে।

টোকিওতে পরিস্থিতি আরও গুরুতর। ২০২৩ সালে, রাজধানীর উর্বরতার হার - একজন মহিলা তার জীবদ্দশায় গড়ে যে পরিমাণ সন্তানের জন্ম দেয় - ছিল ০.৯৯ ৷ অর্থাৎ শহরের নারীদের প্রত্যাশিত প্রজনন হার ১-এর নিচে নেমে এসেছে।

জাপান সরকার তার ২০২৪ সালের বাজেটে শিশু যত্ন এবং পিতামাতার যত্নের জন্য ৩৪ বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করেছে।

বিলিয়নেয়ার এলন মাস্ক এই ডেটিং অ্যাপ আনার জন্য টোকিও সরকারের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। মাস্ক অ্যাপটির সমর্থনে টুইট করে বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের চেয়ে জনসংখ্যা হ্রাসকে আরও গুরুতর হুমকি বলে অভিহিত করেছেন।

অ্যাপটি চালু করার ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় টেসলার সিইও বলেছেন,‘বিপ্লবী পদক্ষেপ না নিলে জাপান এবং আরও অনেক দেশ নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে!

শেয়ারনিউজ, ০৭ জুন ২০২৪

পাঠকের মতামত:

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ খবর

আন্তর্জাতিক - এর সব খবর



রে