ঢাকা, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪
Sharenews24

কর ফাঁকিবাজদের আন্তর্জাতিক ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি

২০২৪ জুন ১৫ ২৩:০৫:০৬
কর ফাঁকিবাজদের আন্তর্জাতিক ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কর ফাঁকির বিরুদ্ধে একটি অভূতপূর্ব পদক্ষেপের প্রস্তাব করেছে পাকিস্তানের সরকার। যারা করফাঁকি দেবে তারা আন্তর্জাতিক ভ্রমণের ছাড়পত্র পাবে না।

সরকারের কাছ থেকে ঋণ নেয়া লোকদের মোবাইল ফোন এবং ইউটিলিটি পরিষেবা অস্বীকার করা হবে। সরকারি সংস্থাগুলির উপর ভারী ঋণ থাকা সত্ত্বেও তারা জরিমানা বাস্তবায়নে ব্যর্থ হয়েছে। তাই এবার সরকারের প্রস্তাবিত বাজেটের রূপরেখায় বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে দেখা হয়েছে।

দেশটির অর্থমন্ত্রী মুহম্মদ আওরঙ্গজেব ২০২৫ সালের জুন পর্যন্ত দেশের বাজেট পেশ করেছেন। দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি মার্চ মাসে একটি নতুন সরকার গঠনের পর এটিই প্রথম বাজেট।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের কাছ থেকে দীর্ঘমেয়াদি বেলআউট চেয়েছে পাকিস্তান। বাজেটের মোট ব্যয় ৬৭ বিলিয়ন ডলার, চলতি অর্থবছরের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি। সরকার অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ৩.৬ শতাংশ।

নতুন বাজেটে, সরকার ৪৬.০৬ বিলিয়ন ডলারের উচ্চাভিলাষী কর সংগ্রহের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে, যা আগের অর্থবছরের তুলনায় ৩৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

সরকারের প্রস্তাবটিতে করদাতাদের উপর চাপ বাড়ানো হয়েছে। স্ব-নিযুক্ত কর্মী এবং ঠিকাদার সহ যারা একটি নির্দিষ্ট বেতন পান না, তারা ৪৫ শতাংশ পর্যন্ত আয়কর হারের সম্মুখীন হন, এটি এমন একটি স্তর যা বেশ খাড়া বলে মনে করেন অর্থনীতি তথা কর ব্যবস্থার বিশেষজ্ঞ ইকরাম উল হক।

"ঋণের উপর লাভ" বা ব্যাংক আমানতের উপর প্রদত্ত সুদের উপর কর ৩০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৩৫ শতাংশ করা হয়েছে।

হক নিক্কেই এশিয়াকে বলেন, বাজেটে ধনী ও ক্ষমতাবানদের লক্ষ্য করে কোনো নতুন করের ব্যবস্থা নেই। সেইসঙ্গে তিনি সতর্ক করে বলেন, “বিদ্যমান করের হারের বৃদ্ধি ইতোমধ্যেই অতিরিক্ত চাপে থাকা করদাতাদের আরো চাপে ফেলবে। 'সরকার বিষয়টিকে ভিন্নভাবে দেখে।

বাজেট ঘোষণার পর আওরঙ্গজেব গণমাধ্যমের সামনে বলেন, “সবাইকে করের আওতায় আসতে হবে।' একটি বড় কর গ্রহণ নিশ্চিত করার জন্য, সরকার নিবন্ধিত করদাতাদের জন্য অভূতপূর্ব নিষেধাজ্ঞা চালু করেছে যারা ইতিমধ্যে তাদের রিটার্ন দাখিল করেনি।

ট্যাক্স নিয়ম লঙ্ঘনের জন্য অনেকের মোবাইল সিম কার্ডগুলি ব্লক করা শুরু হয়েছে। রিটার্ন ফাইল করতে ব্যর্থ যারা সেই করদাতাদের ইউটিলিটি সংযোগগুলিও ব্লক করবে। সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে আরো এক ধাপ এগিয়ে, কর ফাঁকিবাজদের দেশের বাইরে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।

এ ছাড়া হজে যাওয়া যাত্রীদের, ছাত্র এবং নাবালকদের ছাড় দেওয়া হয়েছে। সরকার এমনকি কর লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে ব্যর্থ হওয়া মোবাইল ফোন ক্যারিয়ারের মতো পাবলিক এজেন্সি এবং কোম্পানিগুলির জন্য ৭ লক্ষ ডলার পর্যন্ত জরিমানা ঘোষণা করেছে।

অনেক পাকিস্তানি এই ক্র্যাকডাউনে অসন্তুষ্ট, সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁরা প্রস্তাবিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার নিন্দা জানিয়েছেন।

ট্যাক্স বিশেষজ্ঞ হক সংশয় প্রকাশ করে বলেছেন, “উচ্চ কর আনুষ্ঠানিক খাতকে প্রভাবিত করার পাশাপাশি আরও কর পরিহারের দিকে নিয়ে যাবে। এটি অনানুষ্ঠানিক খাতে লেনদেনকে উৎসাহিত করবে।”

আটলান্টিক কাউন্সিলের পাকিস্তান ইনিশিয়েটিভের ডিরেক্টর উজাইর ইউনুস বলেছেন, ট্যাক্স লক্ষ্যমাত্রা অসম্পূর্ণ বলে মনে হচ্ছে।

তিনি নিক্কেই এশিয়াকে বলেন, "আমরা হয়ত সরকারকে স্লিপেজের কারণে অদূর ভবিষ্যতে একটি মিনি বাজেট পেশ করতে দেখতে পারি, অথবা তারা ব্যয়কে সীমাবদ্ধ করতে পারে, বিশেষ করে অবকাঠামোগত ব্যয় হ্রাস করে।' পাকিস্তান বর্তমানে আইএমএফের সাথে ৬ বিলিয়ন ডলার থেকে ৮ বিলিয়ন ডলারের এক্সটেন্ডেড ফান্ড ফ্যাসিলিটি চুক্তি নিয়ে আলোচনা করছে। আইএমএফের -এর অন্যতম প্রধান দাবি হল পাকিস্তান যেন তার কর সংগ্রহ যথেষ্ট পরিমাণে বাড়ায়।

আটলান্টিক কাউন্সিলের ইউনুস বলেছেন, "এটি অবশ্যই একটি আইএমএফ বাজেট, যার জন্য বিপুল পরিমাণ কর বৃদ্ধি করা হচ্ছে।" ক্ষমতাসীন পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এর জোট অংশীদার পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) এর আইন প্রণেতারা প্রাথমিকভাবে আপত্তি জানিয়েছিলেন।

পরে, বাজেট পেশ করার জন্য সরকারকে যে কোরাম প্রয়োজন তা দিতে তারা অধিবেশনে যোগ দেন। আগামী সপ্তাহে ঈদের ছুটির পর ২০ জুন জাতীয় সংসদে বাজেট নিয়ে বিতর্ক শুরু হতে পারে।

জুন শেষ হওয়ার আগে সংসদে বাজেট পাস করতে হবে সরকারকে।

মোর্শেদ/

পাঠকের মতামত:

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ খবর

আন্তর্জাতিক - এর সব খবর



রে