ঢাকা, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪
Sharenews24

ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতেন তিনি, অতঃপর...

২০২৪ জুন ১৬ ০০:০০:৪৭
ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতেন তিনি, অতঃপর...

নিজস্ব প্রতিবেদক : দীর্ঘদিন যাবৎ নিজেকে ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ধরণের অপকর্ম করতেন তিনি। আবার একাই পরিচালনা করতেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। অবশেষে ধরা পড়লেন সেই ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট শাহারিয়া জাহান (৫০)।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জরিমানা করার পর রশিদ দিতে না পারায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে ধরে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) গ্রেপ্তারকৃতকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এর আগে বুধবার (১২ জুন) বিকেলে ফরিদপুর সদর উপজেলার চরমাধবদিয়া ইউনিয়নের মমিনখার হাট-বাজারে কালাম বগুড়া মিষ্টান্ন ভান্ডারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে গেলে স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

গ্রেপ্তারকৃত শাহারিয়া জাহান রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার বাসিন্দা। বিভিন্ন এলাকায় ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকেলে ওই ব্যক্তি ফরিদপুর সদর উপজেলার চরমাধবদিয়া ইউনিয়নের মমিনখারহাট বাজারে কালাম বগুড়া মিষ্টান্ন ভান্ডারে গিয়ে হাজির হন। দেখতে চান ওই দোকানের বিভিন্ন লাইসেন্স।

এরপর দোকানের ভেতরে প্রবেশ করে নানা অনিয়ম খোঁজার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে ওই প্রতিষ্ঠানের মালিককে বলেন নানা অনিয়ম পাওয়া গেছে, ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। দোকান মালিক এক পর্যায়ে নত হয়ে এক হাজার টাকা দেন ম্যাজিস্ট্রেট শাহারিয়াকে। এরপর দোকান মালিক তার কাছে রশিদ চান। তখনই বাঁধে বিপত্তি।

রশিদ দিতে না পারায় ওই দোকান মালিক বাজারের অন্য ব্যবসায়ীদের ডেকে আনেন। তাকে ঘিরে ধরে প্রশ্ন করতেই ধরা খেয়ে যান ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট শাহারিয়া।

পরে ৯৯৯ এ ফোন দিলে কোতয়ালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট শাহারিয়া জাহানকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে।

কালাম বগুড়া মিষ্টান্ন ভান্ডারের স্বত্বাধিকারী আশিকুর রহমান জানান, শাহারিয়া জামান দোকানে এসে নিজেকে ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দেন। পরে দোকানের বিভিন্ন মিষ্টি ভালো না বলতে থাকেন। একপর্যায়ে বলেন ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানার টাকা দেন। আমি তাকে এক হাজার টাকা দিয়ে বলি আপনি এসেছেন সম্মানে এটা দিলাম।

তিনি আরও জানান, যখন রশিদ চাইলাম, তখনই নানা টালবাহানা করতে থাকেন। আমার আগে থেকেই ওনাকে দেখে সন্দেহ হচ্ছিল, রশিদ দিতে না পারায় তখন নিশ্চিত হলাম উনি ম্যাজিস্ট্রেট না।

এছাড়া যখন ম্যাজিস্ট্রেট বের হয় তখন তার সঙ্গে পুলিশসহ অন্যরাও থাকে। উনি এসেছেন একা। পরে বাজারের অন্য ব্যবসায়ীদের ডেকে এনে উনাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তখন বলে উনি ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট। পরে থানা পুলিশের কাছে তাকে তুলে দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে ফরিদপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. হাসানুজ্জামান জানান, ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে কোতয়ালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট শাহারিয়া জাহানকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে।

তিনি আরো জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্যবসায়ী আশিকুর রহমান বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। বিকেলে গ্রেপ্তারকৃতকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

মোর্শেদ/

পাঠকের মতামত:

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে