ঢাকা, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪
Sharenews24

খেলা অস্ট্রেলিয়ার, মাথা ব্যাথা ইংল্যান্ডের!

২০২৪ জুন ১৬ ১২:২১:০৩
খেলা অস্ট্রেলিয়ার, মাথা ব্যাথা ইংল্যান্ডের!

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টি-টোয়েন্টি খেলা অস্ট্রেলিয়া-স্কটল্যান্ডের, অথচ মাথাব্যথা ইংল্যান্ডের। এর কারণ হলো, এই ম্যাচের ওপরেই নির্ভর করছিল ইংল্যান্ডের সুপার এইট ভাগ্য।

কোনো কারণে স্কটল্যান্ড জিতলেই গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় ঘণ্টা বাজত ইংলিশদের। বিপরীতে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ‘বি’ গ্রুপ থেকে সুপার এইটে উঠে যেত স্কটিশরা।

এদিকে, স্কটল্যান্ডও সুপার এইটে ওঠার জন্য চেষ্টার কমতি রাখেনি। সেন্ট লুসিয়ায় আগে ব্যাটিংয়ে নেমে অস্ট্রেলিয়াকে ১৮১ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দেয় স্কটিশরা। এক পর্যায়ে ম্যাচের পাল্লা হেলেও ছিল আইসিসির সহযোগী দেশটির দিকে।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত স্নায়ুচাপ ধরে রাখতে পারেনি স্কটল্যান্ড। তিনটি সহজ ক্যাচও মিস করে বসেছে তারা। এর মাশুলও দিতে হয়েছে ম্যাচ হেরে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিয়ে।

শেষ ওভারে নিষ্পত্তি হওয়া ম্যাচে ৫ উইকেটের জয় পেয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। স্কটিশদের স্বপ্নভঙ্গের দিনে সুপার এইটের টিকিট হাতে পেয়ে যায় ইংল্যান্ড।

সেন্ট লুসিয়াতে টস জিতে স্বাভাবিকভাবে স্কটল্যান্ডকে আগে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক মিচেল মার্শ।

ইনিংসের প্রথম ওভারেই স্কটিশ ওপেনার মাইকেল জোনসকে (২) ফিরিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে ব্রেকথ্রু এনে দেন প্যাট কামিন্সের বদলে একাদশে জায়গা পাওয়া অ্যাস্টন অ্যাগার।

শুরুতে ধাক্কা খেলেও হাল ছাড়েনি স্কটল্যান্ড। তিনে নেমে স্কটিশদের রানের গতি বাড়াতে থাকনে ব্রেন্ডন ম্যাকমুলেন। তাঁকে যোগ্য সঙ্গ দেন আরেক ওপেনার মুনশে। দুজনের দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৪৮ বলে ৮৯ রান পায় স্কটল্যান্ড।

নবম ওভারের শেষ বলে দলকে ৯২ রানে রেখে আউট হন মুনশে (২৩ বলে ৩৫ রান)। ইনিংসের ১১তম ওভারে দলীয় শতরান পেরিয়ে যায় দলটি। তখন মনে হচ্ছিল, দুই শ-ও পেরিয়ে যেতে পারে স্কটল্যান্ডের সংগ্রহ।

কিন্তু ইনিংসের ১২তম ওভারে অ্যাডাম জাম্পার বলে ম্যাকমুলেন আউট হলে রানের গতি থেমে যায় স্কটিশদের। ম্যাকমুলেন ৩৪ বলে ২ চার ও ৬ ছক্কায় ৬০ রান করেছেন।

এরপর অধিনায়ক বেরিংটন ইনিংসের শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করে ৪২ রানে অপরাজিত থাকলেও তিনি বল খেলেছেন ৪১টি। এছাড়া ম্যাথিও ক্রস ১১ বলে ১৮ রানের কল্যাণে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৮০ রানে থামে স্কটল্যান্ডের ইনিংস।রান তাড়ায় ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই আউট হন অস্ট্রেলিয়া ওপেনার ওয়ার্নার (১)। পাওয়ার প্লের আগে অধিনায়ক মিচেল মার্শকেও (৮) হারায় অস্ট্রেলিয়া।

ম্যাক্সওয়েলও উইকেটে থিতু হতে পারেননি। একটা ছক্কা মারলেও ৮ বলে ১১ রানেই থেমেছে ম্যাক্সওয়েলের ইনিংস। ৬০ রানে ৩ উইকেট নেই অস্ট্রেলিয়ার।

তবে উইকেটের এক প্রান্তে লিড ধরে রেখেছিলেন ওপেনার ট্রাভিস হেড। মার্কাস স্টয়নিস মারকাটের সাথে চতুর্থ উইকেট জুটিতে অস্ট্রেলিয়াকে ৪৪ বলে ৮০ রান দেন। ম্যাচ যায় অস্ট্রেলিয়ায়।

৪৯ বলে ৬৮ রান করা হেড ইনিংসের ১৬তম ওভারে আউট হন। পরের ওভারে স্টোইনিসও ফিরে যান ড্রেসিংরুমে। ১৫ রানের ব্যবধানে দুই সেট ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ভয়ের মেঘ জমেছে অস্ট্রেলিয়ার আকাশে।

শেষ ৩ ওভারে জিততে অস্ট্রেলিয়ার দরকার ছিল ২৬ রান। টিম ডেভিডের ১৪ বলে ২৪ রানের ক্যামিও ইনিংসের ২ বলে অস্ট্রেলিয়াকে সমতা এনে দেয়।

এএসএম/

পাঠকের মতামত:

খেলাধুলা এর সর্বশেষ খবর

খেলাধুলা - এর সব খবর



রে