ঢাকা, শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪
Sharenews24

ব্যাংক-বিমা-ব্রোকারেজ হাউজের সংখ্যায় এগিয়ে বাংলাদেশ

২০২৩ সেপ্টেম্বর ১৮ ২২:৫৮:৫৩
ব্যাংক-বিমা-ব্রোকারেজ হাউজের সংখ্যায় এগিয়ে বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশে ব্যাংক, বিমা কোম্পানি, ব্রোকারেজ ফার্ম ও মার্চেন্ট ব্যাংকের সংখ্যা অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক বেশি। গত কয়েক দশকে সরকার আর্থিক খাতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স দিয়েছে। ফলে বাংলাদেশে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও বেড়েছে।

বিভিন্ন দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশে ব্যাংকের সংখ্যা ৫১টি, যেখানে ভারতে ৩৪টি, নেপালে ২০টি, ভিয়েতনামে ৩৪টি, পাকিস্তানে ২৯টি, শ্রীলঙ্কায় ১৬টি, থাইল্যান্ডে ২২টি এবং নাইজেরিয়ায় ১৭টি। তবে বাংলাদেশে ব্যাংকের সংখ্যা বেশি হলেও এখনো প্রায় দেশের প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষ ব্যাংকিং সুবিধা বঞ্চিত।

একইভাবে, বাংলাদেশে ৮০টি বিমা প্রতিষ্ঠান আছে। অথচ ভারতে আছে ৫৮টি, নেপালে ৩৪টি, ভিয়েতনামে ৫৩টি, পাকিস্তানে ৫৪টি, শ্রীলঙ্কায় ২৭টি, থাইল্যান্ডে ৭৪টি এবং নাইজেরিয়ায় ৫৭টি বিমা প্রতিষ্ঠান আছে। তারপরও বিমা করার দিক থেকে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান সর্বনিম্ন।

স্টক ব্রোকারেজ ফার্মের দিক থেকেও বাংলাদেশ শীর্ষে রয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে ৪০২টি ব্রোকার সেবা দিয়ে থাকে। আর ভারতে ব্রোকারেজ ফার্মের সংখ্যা ৩১৪টি, নেপালে ৬৭টি, ভিয়েতনামে ৮৯টি, পাকিস্তানে ২০৪টি, শ্রীলঙ্কায় ২৬টি, থাইল্যান্ডে ৩৬টি এবং নাইজেরিয়ায় ১৮৩টি।

৬৮টি মার্চেন্ট ব্যাংক নিয়ে বাংলাদেশ আটটি দেশের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্থানে আছে। এই তালিকায় সবার ওপরে আছে ভারত, দেশটিতে ২০০ মার্চেন্ট ব্যাংক কাজ করে। এছাড়া নেপালে ২৮টি, ভিয়েতনামে ১৭টি, পাকিস্তানে ৫৪টি, শ্রীলঙ্কায় ২১টি, থাইল্যান্ডে ৫০টি ও নাইজেরিয়ায় ৩২টি মার্চেন্ট ব্যাংক আছে। কিন্তু অর্থনীতিতে মূলধন যোগান দেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশে শেয়ারবাজারের অবদান খুবই কম।

বাংলাদেশে বিপুল সংখ্যক ব্যাংক থাকা সত্ত্বেও গ্রামীণ এলাকা ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মধ্যে তাদের উপস্থিতি সন্তোষজনক নয়। অন্যদিকে শেয়ারবাজারে ব্রোকারেজ ফার্ম ও মার্চেন্ট ব্যাংকের অবদান তুলনামূলক কম।

২০২২ সালে বিমা খাতে বাংলাদেশের মোট জনগণের তুলনায় বীমা খাতে যুক্ত হওয়ার হার ছিল ০.৪৬ শতাংশ। বিপরীতে ভারতে ছিল ৪.২০ শতাংশ, নেপালে ৩.৫৭ শতাংশ, ভিয়েতনামে ৩.৩৮ শতাংশ, পাকিস্তানে ০.৯১ শতাংশ, শ্রীলঙ্কায় ১.৩৯ শতাংশ ও নাইজেরিয়ায় ০.৫ শতাংশ।

ভারতের মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো ২০১৮ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে ২ হাজার ১৮৩টি কোম্পানির প্রাথমিক তহবিল সংগ্রহে সহায়তা করেছে। একই সময়ে বাংলাদেশের মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো মাত্র ৫০টি কোম্পানিকে তহবিল সংগ্রহে সহায়তা করেছে।

২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের বাজার মূলধন-জিডিপি অনুপাত ১৮.৩৯ শতাংশ থেকে কমে ১৩.০২ শতাংশে নেমে এসেছে। অবশ্য সরকারি সিকিউরিটিজ তালিকাভুক্তির ফলে ২০২২-২৩ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯.১৪ শতাংশে।

ভারতে এই অনুপাত ১০৩ শতাংশ, নেপালে ৬৩ শতাংশ, ভিয়েতনামে ৯০ শতাংশ, পাকিস্তানে ১০ শতাংশ, শ্রীলঙ্কায় ১৬ শতাংশ, থাইল্যান্ডে ১০৮ শতাংশ এবং নাইজেরিয়ায় ১৪ শতাংশ।

বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের তথ্যে দেখা গেছে, ২০২২ সালে চারটি বিমা কোম্পানির দাবি নিষ্পত্তির অনুপাত ছিল ৪০ শতাংশেরও কম। এর মধ্যে বায়রা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের নিষ্পত্তির অনুপাত ছিল ১.৮৩ শতাংশ, যা বিমা কোম্পানিগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন।

বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স একাডেমির পরিচালক এস এম ইব্রাহিম হোসেন বলেন, 'তীব্র প্রতিযোগিতার কারণে বেশিরভাগ বিমা কোম্পানি ভালো ব্যবসা করতে পারছে না। এই কারণে তারা গ্রাহকদের ভালো সেবাও দিতে পারছে না।'

শেয়ারনিউজ, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩

পাঠকের মতামত:

শেয়ারবাজার এর সর্বশেষ খবর

শেয়ারবাজার - এর সব খবর



রে