ঢাকা, সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪
Sharenews24

মাসের ব্যবধানে তিন শেয়ারে বিনিয়োগকারীদের সর্বোচ্চ লোকসান

২০২৩ ডিসেম্বর ০৯ ১৮:৫৬:৪৯
মাসের ব্যবধানে তিন শেয়ারে বিনিয়োগকারীদের সর্বোচ্চ লোকসান

নিজস্ব প্রতিবেদক : শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৩ কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগকারীরা সর্বোচ্চ লোকসানে পড়েছে। গত এক মাস আগে কোম্পানিগুলোর শেয়ার কিনে তারা বিপুল লোকসানের মুখে পড়েছেন। কোম্পানিগুলো হলো-জেমিনি সী ফুড, ইউনিয়ন ইন্সুরেন্স ও এমারেন্ড ওয়েল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ও স্টকনাও সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

জেমিনি সী ফুড

গত ৬ নভেম্বর জেমিনি সী ফুডের শেয়ারদর ছিল ৭৩১ টাকা ৯০ পয়সা। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (০৭ ডিসেম্বর) কোম্পানিটির শেয়ারদর এসে দাঁড়িয়েছে ৫৮৩ টাকা ৭০ পয়সায়। এক মাসের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারদর কমেছে ১৫৪ টাকা ৫০ পয়সা বা ২০.২৫ শতাংশ।

৩০ জুন, ২০২৩ অর্থবছরের জন্য কোম্পানিটি ১০০ শতাংশ বোনাস ও ২০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। বোনাস ডিভিডেন্ডের রেকর্ড ডেট এখনো নির্ধারণ করেনি। কারণ বোনাস ডিভিডেন্ডে এখনো বিএসইসির অনুমতি পাওয়া যায়নি।

চলতে অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাক ৯ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ৪ টাকা ৯ পয়সা।

সর্বশেষ শেয়ার দরের ভিত্তিতে কোম্পানিটির পিই রেশিও দাঁড়িয়েছে ১৩৩.৮৮ পয়েন্টে।

ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্স

গত ৬ নভেম্বর ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের শেয়ারদর ছিল ৭০ টাকা ৮০ পয়সা। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (০৭ ডিসেম্বর) কোম্পানিটির শেয়ারদর এসে দাঁড়িয়েছে ৫৭ টাকায়। এক মাসের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারদর কমেছে ১৩ টাকা ৮০ পয়সা বা ১৯.৭২ শতাংশ।

৩১ ডিসেম্বর, ২০২২ অর্থবছরের জন্য কোম্পানিটি ১০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আলোচ্য অর্থবছরে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছিল ১ টাকা ৭৭ পয়সা।

চলতে অর্থবছরের তিন প্রান্তিকে বা ৯ মাসে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাক ১৩ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ৮০ পয়সা।

সর্বশেষ শেয়ার দরের ভিত্তিতে কোম্পানিটির পিই রেশিও দাঁড়িয়েছে ১৫.২২ পয়েন্টে।

এমারেন্ড ওয়েল

গত ৬ নভেম্বর এমারেন্ড ওয়েলের শেয়ারদর ছিল ১২৪ টাকা ১০ পয়সা। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (০৭ ডিসেম্বর) কোম্পানিটির শেয়ারদর এসে দাঁড়িয়েছে ১০০ টাকা ৮০ পয়সায়। এক মাসের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারদর কমেছে ২৩ টাকা ৩০ পয়সা বা ১৯.১৭ শতাংশ।

৩০ জুন, ২০২৩ অর্থবছরের জন্য কোম্পানিটি ১০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড দিয়েছে। এরমধ্যে ৫ শতাংশ অন্তবর্তী ডিভিডেন্ড ও ৫ শতাংশ চুড়ান্ত ডিভিডেন্ড। সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৭৩ পয়সা। আগের বছর ইপিএস ছিল ১৭ পয়সা।

চলতে অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাক ৪৭ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ২২ পয়সা।

সর্বশেষ শেয়ার দরের ভিত্তিতে কোম্পানিটির পিই রেশিও দাঁড়িয়েছে ১৭.১৪ পয়েন্টে।

শেয়ারনিউজ, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩

পাঠকের মতামত:

শেয়ারবাজার এর সর্বশেষ খবর

শেয়ারবাজার - এর সব খবর



রে