ঢাকা, রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪
Sharenews24

আরও কঠিন হলো গোল্ডেন ভিসা

২০২৪ এপ্রিল ০২ ১৫:৪৪:৫৭
আরও কঠিন হলো গোল্ডেন ভিসা

প্রবাস ডেস্ক : গ্রিসে গোল্ডেন ভিসা পাওয়া আরও কঠিন হয়ে পড়েছে। আবাসন সংকট কাটাতে রোববার দেশটি গোল্ডেন ভিসার নিয়মে কড়াকড়ি আরোপ করেছে।

দেশিটিতে ভিসা পেতে বিনিয়োগের পরিমাণ কয়েকগুণ বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

গোল্ডেন ভিসা কী?

বিনিয়োগের বিপরীতে স্থায়ী বসবাসের ভিসা দেওয়ার নিয়মকে গোল্ডেন ভিসা বলা হয়। অনেক দেশ বিদেশী বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য এই ধরনের সুযোগ দেয়।

এখন পর্যন্ত আড়াই মিলিয়ন ইউরো (প্রায় তিন কোটি টাকা) বিনিয়োগ করা হলে বিনিয়োগকারীকে পাঁচ বছর গ্রিসে বসবাসের অনুমতি দেওয়া হতো।

পরে বিনিয়োগকারীরা সহজেই এই অনুমতি বাড়াতে পারতেন।

যেসব ভুলে বাতিল হতে পারে ভিসার আবেদন

এই প্রকল্পটি অনেক সফলতার মুখ দেখেছে। ২০১৪ সালে সুবর্ণ ভিসার নিয়ম ঘোষণার পর থেকে হাজার হাজার চীনা বিনিয়োগকারী গ্রিসের বিভিন্ন ব্যবসায় বিনিয়োগ করেছে।

তবে এখন গ্রিসের বিভিন্ন অঞ্চলে তীব্র আবাসন সংকটের কারণে দেশটির সরকার এই নিয়ম কিছুটা কঠোর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

গ্রিসের অর্থ মন্ত্রণালয় রবিবার ঘোষণা করেছে যে নতুন নিয়ম অনুযায়ী, গোল্ডেন ভিসার জন্য নির্দিষ্ট কিছু আকর্ষণীয় স্থানে অন্তত আট মিলিয়ন ইউরো বিনিয়োগ করতে হবে।

এই অঞ্চলগুলির মধ্যে রয়েছে রাজধানী এথেন্স, অ্যাটিকা, থেসালোনিকি, মাইকোনোস, সান্তোরিনি এবং 3,100 জন বাসিন্দা সহ দ্বীপগুলি। অন্যান্য অঞ্চলে, প্রয়োজনীয় বিনিয়োগের পরিমাণ চার মিলিয়ন ইউরোতে উন্নীত করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী কোস্টিস হাতসিদাকিস বলেছেন, "এই সিদ্ধান্তটি সরকারের আবাসন নীতির অংশ, যার লক্ষ্য বেসরকারি খাতের সহযোগিতায় সকল নাগরিকের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যের এবং মানসম্পন্ন আবাসন নিশ্চিত করা।"

ব্যাংক অব গ্রিসের তথ্য অনুসারে, ২০১৮ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রায় এক দশক দীর্ঘ অর্থনৈতিক সংকট থেকে বের হয়ে আসার পর দেশটিতে বাসা ভাড়া ২০ শতাংশ বেড়েছে।

বিনিয়োগকারীদের এখন অন্তত ১২০ বর্গ মিটারের একটি সম্পত্তি কিনতে হবে, অন্যদিকে আবাসনে রূপান্তরিত করা ঐতিহাসিক স্থাপনা এবং শিল্প ভবনগুলোর মূল্য হবে অন্তত আড়াই লাখ ইউরো।

অভিবাসন মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী গত বছরের ভিসা গ্রহণ বা নবায়নের জন্য রেকর্ড ১০ হাজার ২১৪টি আবেদন জমা পড়েছে।

২০২৩ সালে মোট পাঁচ হাজার ৭০১টি গোল্ডেন ভিসা পারমিট দেওয়া হয়েছে এবং আরো আট হাজার ৮০০টি আবেদন এখনও নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে৷

দেশটিতে এক বছরে বিনিয়োগ বেড়েছে অন্তত ১০০ কোটি ইউরো।

গ্রিসের অ্যাসোসিয়েশন অব পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিজ অ্যান্ড এন্টারপ্রেনরশিপ- এসএইই অবশ্য এই নীতির কার্যকারিতা নিয়ে সন্দিহান।

২০০৮ সালে শুরু হওয়া অর্থনৈতিক সংকটের পর থেকে সম্পত্তির বাজার এবং নির্মাণ শিল্প একটি গুরুতর মন্দার সম্মুখীন হয়েছিল।

এসএইই বলছে, এখন পর্যন্ত রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগের জন্য প্রায় ২০ হাজার বিনিয়োগকারীকে স্থায়ী বসবাসের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

অভিবাসন ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতে, কেবল ২০২১ সালেই ছয় হাজার ৪০৫ জন চীনা নাগরিক গ্রিসে বসবাসের অনুমতি নিয়েছেন।

শেয়ারনিউজ, ০২ এপ্রিল ২০২৪

পাঠকের মতামত:

প্রবাস এর সর্বশেষ খবর

প্রবাস - এর সব খবর



রে