ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ মে, ২০২৪
Sharenews24

যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসীদের কারণে কি সত্যিই অপরাধ বাড়ছে?

২০২৪ এপ্রিল ১৩ ১৮:০৩:২১
যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসীদের কারণে কি সত্যিই অপরাধ বাড়ছে?

প্রবাস ডেস্ক : আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচনী প্রচারণায় অভিবাসীদের নিয়ে নানা ধরনের মন্তব্য করছেন।

তিনি দাবি করেছেন, অভিবাসীদের কারণেই যুক্তরাষ্ট্রে সহিংস অপরাধ বাড়ছে। প্রশ্ন হলো, অভিবাসীদের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের এমন অভিযোগ কতটা সঠিক?

নির্বাচনকে সামনে রেখে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বারবার কঠোর সীমান্ত নিরাপত্তার বিষয়ে মন্তব্য করেছেন। সীমান্ত নজরদারি বৃদ্ধির যুক্তি হিসেবে তিনি অবৈধ অভিবাসনের কারণে দেশে অপরাধ বৃদ্ধির কথা উল্লেখ করেন।

শুধু তাই নয়, যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকেও দায়ী করেন তিনি। "বিডেনের নীতি হল সবকিছু দ্রুত অনুমোদন করা," তিনি বলেছিলেন। অভিবাসীরা কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকলে, ট্রাম্প একে ‘বাইডেনের অভিবাসী অপরাধ’ বলেও অভিহিত করেছেন।

সাম্প্রতিক সময়ে অভিবাসীদের নিয়ে একের পর এক অবমাননাকর মন্তব্য করেছেন সাবেক এই মার্কিন প্রেসিডেন্ট। অনিয়মিত পথে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমানো অভিবাসীদের ‘পশু’ বলেও অভিহিত করেন তিনি।

অভিবাসীরা ‘আমাদের দেশের রক্তকে দূষিত করছে’ এমন কথাও বলেছেন তিনি।অবশ্য ট্রাম্পের এমন মন্তব্য তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে। এসব মন্তব্যকে ‘জেনোফোবিক এবং নাৎসি বয়ানের প্রতিধ্বনি’ বলে সমালোচনা করেছেন তার বিরোধীরা।

ট্রাম্প এবং তার অনেক সহকর্মী রিপাবলিকান জর্জিয়ার নার্সিং ছাত্র লেকেন রিলিকে হত্যার বিষয়টি তুলে ধরেছেন। রিলি নামে একজন মেডিকেল ছাত্র সম্প্রতি ভেনেজুয়েলার এক অবৈধ অভিবাসীর হাতে খুন হয়েছেন।

গত মার্চে স্টেট অফ দ্য ইউনিয়ন বক্তৃতায়, রিপাবলিকান মার্জোরি টেলর গ্রেনি বিডেনকে রিয়েলের হত্যার কথা স্বীকার করতে বলেছিলেন। জবাবে বিডেন বলেন, রিলি একজন নিরপরাধ যুবতী একজন অবৈধ অভিবাসীর হাতে নিহত হয়েছেন।

সেই সময় বাইডেন প্রশ্ন করেন, যুক্তরাষ্ট্রে বৈধভাবে থাকা নাগরিকদের হাতে কতজন নিহত হয়েছেন? বাইডেন অবশ্য পরবর্তীতে ‘অবৈধ’ শব্দটি ব্যবহারের জন্য দুঃখপ্রকাশ করে বলেন শব্দটি ‘অনথিভুক্ত’ হওয়া উচিত ঠিল।

অভিবাসীরা কি সত্যিই অপরাধে বেশি যুক্ত?

বিভিন্ন সংস্থার গবেষণায় দেখা গেছে যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসীরা স্থানীয় বংশোদ্ভূত নাগরিকদের চেয়ে অপরাধের সাথে বেশি জড়িত বলে অভিযোগ সত্য নয়।

একটি উদাহরণ হল ২০১৮ সালে প্রকাশিত 'ইমিগ্রেশন অ্যান্ড ক্রাইম: অ্যাসেসিং কনটেন্টস ইস্যুস' শিরোনামের গবেষণা। ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজির অধ্যাপক ক্রিস কুব্রিন এবং জর্জিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক গ্রাহাম ওসের গবেষণায় ১৯৪৪ থেকে ২০২৪ সালের মধ্যে ৫০ টিরও বেশি অপরাধ বিশ্লেষণ করা হয়েছে এবং অভিবাসী এবং অপরাধের মধ্যে কোনো উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া যায়নি।

স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির অর্থনীতির অধ্যাপক রন আব্রামিটজকি এবং তার সহকর্মীরা 'আইন মেনে চলা অভিবাসী: অভিবাসীদের এবং মার্কিন জন্মের মধ্যে কারাগারের ব্যবধান' শীর্ষক একটি গবেষণা পরিচালনা করেছেন। তাদের সমীক্ষা, যা ১৮৭০ থেকে ২০২০ পর্যন্ত মার্কিন ডেটা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে যে অভিবাসীদের জেলে যাওয়ার সম্ভাবনা নেটিভ-জন্মের তুলনায় অনেক কম। সূত্র: রয়টার্স. ডয়েচে ভেলে

শেয়ারনিউজ, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

প্রবাস এর সর্বশেষ খবর

প্রবাস - এর সব খবর



রে