ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪
Sharenews24

বিবাহবিচ্ছেদে উৎসব করে যে দেশের নারীরা

২০২৪ মে ১০ ১৯:২৮:১১
বিবাহবিচ্ছেদে উৎসব করে যে দেশের নারীরা

ডেস্ক রিপোর্ট : ‘বিবাহ’ মানে জীবনের ইনিংশ শুরু। আর ‘বিবাহ বিচ্ছেদ’ মানে ‘জীবন শেষ’ বা ইনিংশের সমাপ্তি। মৌরতানীয় মহিলারাও মনে করেন, বিবাহবিচ্ছেদ মানে ‘জীবনের শেষ’। দেশটির বিচ্ছেদের পর সংশ্লিষ্ট নারীর পরিবার তার সম্মানে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। স্বামীর ‘অত্যাচার’ কাটিয়ে মেয়েরা আবার ঘরে ফেরার সুযোগ পাওয়ায় দেশে বিচ্ছেদ পালিত হয়।

পরিবারের সবাই বিষয়টি স্বাভাবিক চোখে দেখেন। তাদের ধারণা, মেয়েটি ভালোর জন্য পরিবারে ফিরেছে। তারা এই প্রত্যাবর্তনকে ‘কলঙ্কমুক্ত’ জীবনের সুযোগ হিসেবেও দেখে। তাই একটি ব্যর্থ সম্পর্ক সুখে শেষ হয়। সব আয়োজন শেষ হলে তালাকপ্রাপ্তা নারীরা সিঙ্গেলদের কাতারে চলে যান।

মরুভূমির একজন তরুণ মেহেন্দি শিল্পী তার সেই দিনের মক্কেল ইশেলেখে জিলানির হাতে আল্পনা আঁকছেন। ভেজা মেহেদিতে যেন একেবারেই দাগ না লাগে সে ব্যাপারে তিনি খুব সতর্ক! ঠিক বিয়ের আগের দিনের মতো। তবে এবার তিনি বিয়ে করছেন না। ডিভোর্স হচ্ছে!

বিবাহ বিচ্ছেদ উপলক্ষে পরের দিন উৎসব হবে। জেইলানির মা শহরবাসীকে এই আনন্দে আমন্ত্রণ জানান। উৎফুল্ল কন্ঠে বলে, তার মেয়ে ও মেয়ের প্রাক্তন দুজনেই বেঁচে আছে।

মায়ের কথা শুনে জিলানী হাসল। তিনি তখন সামাজিক প্ল্যাটফর্ম স্ন্যাপচ্যাটে মেহেদির ছবি পোস্ট করতে ব্যস্ত ছিলেন। মেহেদির ছবি পোস্ট করা বিবাহবিচ্ছেদ ঘোষণার আধুনিক সংস্করণে পরিণত হয়েছে। যদিও এটি মৌরিতানিয়ার অনেক পুরোনো সংস্কৃতি।

বিদায় অনুষ্ঠানের আগে ছিল নাচ, গান এবং ভোজ। সোশ্যাল মিডিয়া এখন সেলফি প্রজন্মের সাথে যোগ দিয়েছে। আল্পনা আঁকা কেক। মেয়েরা গর্ব করে সোশ্যাল মিডিয়ায় এখানে বিচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছে।

বিবাহবিচ্ছেদ অনেক সংস্কৃতিতে লজ্জাজনক হিসাবে দেখা হয়। কিন্তু পশ্চিম আফ্রিকার সুন্দর দেশ মৌরিতানিয়ায় নারীদের জন্য এটা শুধু স্বাভাবিক নয়, আনন্দের উপলক্ষ! কারণ, শিগগিরই আবার বিয়ে করবেন তিনি। বহু শতাব্দী ধরে, সেখানকার মহিলারা অন্য মহিলার বিবাহবিচ্ছেদ উদযাপন করেছেন।

মৌরিতানিয়ায় ২০১৮ সালের একটি সরকারি প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে বিবাহের এক তৃতীয়াংশ বিবাহবিচ্ছেদে শেষ হয়েছে। এর মধ্যে ৭৪ শতাংশ নারী আবার বিয়ে করেছেন। এবং ২৫ শতাংশ কখনও বিয়ে করেননি।

মৌরিতানিয়া প্রায় ১০০ শতাংশ মুসলিম দেশ। এখানে প্রায়ই বিবাহবিচ্ছেদ হয়। অনেকে ৫ থেকে ১০ বার বিয়ে করে। কেউ ২০ বারের বেশি!

অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, দেশটিতে বিবাহ বিচ্ছেদের হার বিশ্বে সবচেয়ে বেশি। তবে মৌরিতানিয়ায় এ সম্পর্কে খুব বেশি নির্ভরযোগ্য তথ্য নেই। এটি আংশিক কারণ এখানে বিবাহবিচ্ছেদ প্রায়ই মৌখিক হয়, নথিভুক্ত নয়।

কেন দেশে বিবাহবিচ্ছেদ এত সাধারণ, সে সম্পর্কে দেশটির সমাজবিজ্ঞানী নেজওয়া এল কেতাব বলেছেন যে মৌরিতানীয় সমাজের বেশিরভাগই তাদের পিতৃপুরুষদের কাছ থেকে শক্তিশালী মাতৃতান্ত্রিক প্রবণতা উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত। দেশটির যাযাবর সম্প্রদায় নারীর মর্যাদার কথা প্রচার করেছে। অন্যান্য মুসলিম দেশের তুলনায় মৌরিতানিয়ায় নারীরা বেশ স্বাধীন।

এখানে মহিলারাও বিশেষ পরিস্থিতিতে বিবাহ বিচ্ছেদের ব্যবস্থা নিতে পারেন। অনেক মহিলা আছেন যারা বিবাহ বিচ্ছেদের কথা ভাবেন না। তারপরও যদি বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে তাহলে সমাজে নারীদের সমস্যায় পড়তে হয় না। কারণ এখানে এমন নারীদের কেউ নিন্দা করে না, বরং সমর্থন করে। সমাজ পরিস্থিতিকে সহজ করে দেয়।

উল্লেখ্য যে মৌরিতানিয়া যাযাবর, উটের দেশ এবং তারা এবং উজ্জ্বল চাঁদে ভরা আকাশ। কখনো বলা হয় ১৬ কোটি কবির দেশ। হয়তো সে কারণেই এখানে ডিভোর্সও কাব্যিক!

শেয়ারনিউজ, ১০ মে ২০২৪

পাঠকের মতামত:

বিনোদন এর সর্বশেষ খবর

বিনোদন - এর সব খবর



রে