ঢাকা, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪
Sharenews24

সৌদির ঐতিহাসিক যে স্থানে ৭ দেশের হাজিরা তাবু স্থাপন করতো

২০২৪ মে ১৯ ২২:৫৪:৪০
সৌদির ঐতিহাসিক যে স্থানে ৭ দেশের হাজিরা তাবু স্থাপন করতো

প্রবাস ডেস্ক : সৌদি আরবের আবরাক আল রাগামা নামটি শুধুমাত্র মানচিত্রে অবস্থিত একটি এলাকার নাম নয়; বরং মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটির প্রতিষ্ঠাতা বাদশাহ আবদুল আজিজ আল সৌদের সময় থেকেই এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে।

এই এলাকাটি প্রাচীনকালে হজ কাফেলার আগমনের প্রধান পথ হিসেবে পরিচিত ছিল। সাতটি দেশের হজ কাফেলা আবরাক আল রাগামা এলাকায় ক্যাম্প স্থাপন করত।

দক্ষিণ ইয়েমেন, আমিরাত, কাতার, পূর্ব বাহরাইন, জর্ডান, উত্তর ইরাক এবং উত্তর-পূর্ব কুয়েত থেকে আসা হজ কাফেলার জন্য একটি সাধারণ কেন্দ্র হিসেবে কাজ করে।

ইয়েমেনের উপকূলীয় সড়ক থেকে যারা আগত তাদের জন্য আবরাক আল রাগামা এলাকাটি গুরুত্বপূর্ণ ছিল। সেখান থেকে কাফেলাগুলো জেদ্দায় পৌঁছে একই পথে ফিরে আসে।

একইভাবে, জর্ডানের উত্তর থেকে আগত তীর্থযাত্রীদের জন্য আবরাক আল-রাঘামার একটি বিশেষ ভূমিকা ছিল।

আবরাক আল রাগামা এলাকাটি ইরাক এবং কুয়েত থেকে আসা কাফেলার জন্যও একটি কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে। বাহরাইন কাফেলাও এখান থেকে যাতায়াত করত।

সেখানকার জমির প্রকৃতির কারণে এলাকাটির নামকরণ করা হয়েছে আবরাক আল রাগামা। এখানে প্রচুর পালিশ করা পাথর এবং বালুকাময় সমভূমি রয়েছে।

সৌদি আরব প্রতিষ্ঠার আগে অন্যান্য দেশ থেকে হজের কাফেলা এখানে আসত এবং এখান থেকে মক্কা ও মদিনার উদ্দেশ্যে রওনা দিত।

রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর আবরাক আল রাগামার পরিস্থিতির যথেষ্ট পরিবর্তন হয়েছে এবং এখানে উন্নয়ন প্রকল্প শুরু হয়েছে।

সৌদি মিডিয়া আউটলেট এসপিএ অনুসারে এলাকাটি এখন আধুনিক উন্নয়ন প্রকল্পের একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

-উর্দু নিউজ থেকে অনুবাদ

শেয়ারনিউজ, ১৯ মে ২০২৪

পাঠকের মতামত:

প্রবাস এর সর্বশেষ খবর

প্রবাস - এর সব খবর



রে