ঢাকা, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪
Sharenews24

খোলা হয়নি ব্যালট, তার আগেই সিল

২০২৪ মে ২১ ১৩:১৭:২১
খোলা হয়নি ব্যালট, তার আগেই সিল

নিজস্ব প্রতিবেদক : আজ মঙ্গলবার ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন চলছে। ব্রাম্মনবাড়ীয়ার কসবা উপজেলার কুটি বিহারী উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র। সময় তখন সকাল ৯টা ১৬ মিনিট। ভোটকেন্দ্রে ভোটারের উপস্থিতি তেমন একটা নেই। ভোটারের চেয়ে ভোট গ্রহণের কাজে কর্মকর্তাদের সংখ্যাই বেশি।

এই ভোটকেন্দ্রের চার নম্বর নারী বুথে ঢুকেছেন একজন ভোটার। সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা তখনো বান্ডিল থেকে ব্যালট পেপার ছিঁড়ে ভোটারের হাতে দেননি। এর আগেই সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তার টেবিলে ব্যালট পেপারে সিল মেরে দেন ভোটার। একই কেন্দ্রে এর চার মিনিট আগে পাশের পুরুষ বুথে খোদ এক প্রার্থীর এজেন্ট পোলিং অফিসারের টেবিলেই ব্যালট পেপারে সিল মেরেছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলা নির্বাচনে এমন চিত্রই দেখা গেছে। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ও কসবা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ শফিকুল ইসলামের চশমা প্রতীকে এবং উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী ছাইদুর রহমান স্বপনের কাপ-পিরিচ প্রতীকে পুরুষ বুথে সিল মারা হয়। ছাইদুর রহমান স্বপনের বাড়ি কুটি গ্রামে। তিনি আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের শ্যালক।

দেশের শীর্ষ স্থানীয় ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের অনলাইনের বাংলা সংস্করেণের এক প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হয়েছে। ব্যালটে সিল মারা প্রসঙ্গে তাৎক্ষণিক জানতে চাইলে চার নম্বর বুথে দায়িত্বরত সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মো. রাসেল উদ্দিন বলেন, 'আমি কিছু করতে পারিনি।'

স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা কুটি অটল বিহারী উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে গিয়ে এমন চিত্র দেখে প্রিজাইডিং অফিসারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ভোটকেন্দ্রের নিচতলায় যখন এই ঘটনা ঘটে, তখন প্রিজাইডিং অফিসার আমজাদ হোসেন দ্বিতীয় তলায় বসে দাপ্তরিক কাজে ব্যস্ত ছিলেন। গণমাধ্যমকর্মীদের কাছ থেকে বিষয়টি জানার পর তিনি বুথে প্রবেশ করে সবাইকে এই বিষয়ে সতর্ক করেন।

এরই মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বিষয়টি জানতে পেরে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বিজিবি স্ট্রাইকিং ফোর্স ওই কেন্দ্রে পাঠান। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাহিদা আক্তার ঘটনাস্থলে পৌঁছে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ওই ভোটারকে খুজেন। কিন্তু ততোক্ষণে ভোটার কেন্দ্র ত্যাগ করেছেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাহিদা আক্তার বলেন, আমি প্রিজাইডিং অফিসারসহ ঘটনাস্থলে এসে জানতে পারি ওই ভোটাররা চলে গেছে। এই কারণে আমি প্রিজাইডিং অফিসারকে বলেছি বিষয়টি লিখিতভাবে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে জানাতে এবং ভোটারকে নাম ধরে ডেকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।

শেয়ারনিউজ, ২১ মে ২০২৪

পাঠকের মতামত:

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে