ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪
Sharenews24

৫ মাসেই মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রির আয় হাজার কোটি

২০২৪ জুন ১০ ২২:০২:৪০
৫ মাসেই মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রির আয় হাজার কোটি

বিনোদন ডেস্ক : ভারতীয় সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির বেশকিছু ভাগ রয়েছে। তাদের মধ্যে বলিউড একসময় শক্ত অবস্থানে ছিল। কিন্তু বলিউডের সেই শক্তি প্রায় এক দশক ধরে কমেছে। ২০১৪ সালের পর সিনেমা প্রেমীদেরকে বলিউড ভালো কিছু দিতে পারেনি।

গত বছর শাহরুখের ‘জওয়ান’, ‘পাঠান’, রণবীরের ‘অ্যানিমেল’ আর সানি পাজির ‘গদর টু’ কিছু ব্যবসা দিয়েছে। তামিল ও তেলেগু ইন্ডাস্ট্রি চলছে নিজের মতো।

তবে এ বছরের শুরুতেই মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রি বেশ ভালো করেছে। বছরের প্রথম পাঁচ মাসেই তুলে নিয়েছে ১ হাজার কোটি রুপি। কেবল ভারত নয়, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড বক্স অফিসে এ আয় করেছে ইন্ডাস্ট্রি।

মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রিতে এবার এসেছে ‘আদুজীবিতম’, ‘মানজুম্মেল বয়জ’ ও ‘আভেশাম’। এ তিন সিনেমাই মূলত বেশি ব্যবসা দিয়েছে। এর মধ্যে মানজুম্মেল বয়জ আয় করেছে ২৪০ কোটি, আদুজীবিতম ১৫৮ কোটি ও আভেশাম ১৫৪ কোটি রুপির বেশি।

মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রির মোট আয়ের ৫৫ শতাংশই এসেছে এ তিন সিনেমা থেকে। কিন্তু তার মানে এই না যে তিন সিনেমার মধ্যেই আটকে আছে তারা। মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রিতে নিয়মিত সিনেমা আসে এবং সম্প্রতি এ ইন্ডাস্ট্রির সিনেমা মালয়ালম ভাষাভাষীদের বাইরেও ভালো বাজার পেয়েছে।

উল্লিখিত তিনটি সিনেমার বাইরেও ছিল ‘গুরুভায়োরাম্ভালা নাদায়িল’। সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন পৃথ্বীরাজ সুকুমার, ব্যাসিল জোসেফ, নিখিলা বিমল ও ঐশ্বরিয়া রাজন। এ সিনেমাও বক্স অফিসে ভালো করেছে।

একটি প্রতিবেদন অনুসারে, মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রি মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে বৈশ্বিক বাজার থেকে আয় করেছে প্রায় ৯৮৫ কোটি রুপি। মে শেষ হতে হতে তা ১ হাজার কোটি ছাড়িয়েছে। এ ইন্ডাস্ট্রির জন্য এটি রীতিমতো একটা রেকর্ড।

আগের বছরও এ ইন্ডাস্ট্রি ভালো আয় করেছিল। তাদের সিনেমার তালিকায় ছিল ‘কান্নুর স্কোয়াড’, ‘আরডিএক্স’ ও ‘নেরু’র মতো সিনেমা। প্রতিটি সিনেমাই বক্স অফিসে ভালো করেছে।

বক্স অফিসের বাইরেও সিনেমাগুলো মানুষের মধ্যে যে কৌতূহল ও আগ্রহ তৈরি করেছে তাও গুরুত্বপূর্ণ। কেননা ২০২৩ সালে আসা এসব সিনেমার কারণে ২০২৪ সালের সিনেমা নিয়ে দর্শকের মধ্যে কৌতূহল তৈরি হয়েছে।

এ বছরের আরো দুটো বিশেষ সিনেমা ‘প্রেমালু’ ও ‘ব্রহ্মযুগ’। প্রেমালু রীতিমতো তরুণদের প্রিয় সিনেমা হয়ে উঠেছে। এছাড়া মামুত্থি অভিনীত ‘ব্রহ্মযুগ’ এমন একটি সিনেমা, যা নিয়ে কথা হয়েছে দেশ-বিদেশের নানা মাধ্যমে।

হরর জনরার এ সিনেমা ‘তুম্বাড়’-এর পর সবচেয়ে বেশি আলোচিত। সেই সঙ্গে মামুত্থির অভিনয় নিয়েও সবাই ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রির এ বছরের ডমেস্টিক কলেকশনের দিকে তাকানো যাক। বছর অর্ধেক পেরনোর আগেই বক্স অফিস থেকে তুলে নিয়েছে ৫০০ কোটি রুপি।

এর মধ্যে মানজুম্মেল বয়জ আয় করেছে ১৪২ কোটি রুপি। আদুজীবিতম আয় করেছে ৮৫ কোটি, আভেশাম ৮৫ কোটি, প্রেমালু ৭৫ কোটি ও ব্রহ্মযুগ আয় করেছে ২৭ কোটি রুপি। সব মিলিয়ে ভারতের সিনেমা থেকে হওয়া আয়ের প্রায় ২০ শতাংশ অবদান রাখছে মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রি।

বলিউড এ বছর ততটা ভালো করেনি। ঋত্বিকের ‘ফাইটার’ আয় করেছে সাড়ে ৩০০ কোটির কিছু বেশি। অন্যদিকে ‘শয়তান’ আয় করেছে ২১৩ কোটি রুপি। ‘ক্রু ১৫১’ ও ‘আর্টিকেল ৩৭০’ আয় করেছে ১০০ কোটি রুপির বেশি। তবে কোনো সিনেমাই ৫০০ কোটি রুপি আয় করেনি, যা গত বছর করেছিল।

টালিউডের (তামিল ইন্ডাস্ট্রি) অবস্থাও খুব একটা সুখকর নয়। মহেশ বাবুর গুণ্টুর ‘করম’ ছাড়া কোনো সিনেমা ততটা ভালো করেনি।

কলিউডে একমাত্র ‘ক্যাপ্টেন মিলার’ আয় করেছে ১০০ কোটি রুপির বেশি। সব মিলিয়ে তাই বলা যায়, আয়ের দিক থেকে মালয়ালম ইন্ডাস্ট্রি ভারতে তুলনামূলক এগিয়ে আছে।

শেয়ারনিউজ, ১০ জুন ২০২৪

পাঠকের মতামত:

বিনোদন এর সর্বশেষ খবর

বিনোদন - এর সব খবর



রে